আজ মঙ্গলবার| ২৬ অক্টোবর, ২০২১| ১০ কার্তিক, ১৪২৮

সখিপুরে ৩৫ বস্তা চাল সহ ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিব আটক (বিস্তারিত)

শুক্রবার, ০৮ মে ২০২০ | ১:০১ অপরাহ্ণ | 2194 বার

সখিপুরে ৩৫ বস্তা চাল সহ ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিব আটক (বিস্তারিত)

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলায় ৩৫ বস্তা চাল সহ এক ইউপি চেয়ারম্যান ও এক সচিবকে আটক করা হয়েছে। সামসুদ্দোহা রতন আরশিনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সখিপুর থানা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক। অপরজন জাহাঙ্গীর আলম ঐ ইউনিয়ন পরিষদের সচিব। বৃহস্পতিবার বিকেলে এনএসআই অফিসার জাহাঙ্গীর আলম ও আনোয়ারুল হকের তথ্যের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর আল নাসীফ ও ভেদরগঞ্জ সার্কেলের এএসপি আমিনুর রহমান তাদেরকে হাতেনাতে আটক করে। অভিযানে সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এনামুল হক ও অন্য পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে ঘটনার পরই সখিপুর থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান মানিক স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে চেয়ারম্যান সামসুদ্দোহা রতনকে দলীয় পদ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।

সরেজমিন ঘুরে ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, শরীয়তপুরের ইলিশ শিকারের সাথে যুক্ত জেলেদের খাদ্য সহায়তা হিসেবে ভিজিএফ’র চাল দেয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। তালিকাভুক্ত প্রত্যেক জেলেকে ৪০ কেজি করে চাল বছরে চার দফা দেয়া হয়।
এপ্রিল মাসের চাল ভেদরগঞ্জের আর্শিনগর ইউনিয়নে ৫৮৪ জন জেলের মধ্যে বিতরণ করা হচ্ছিল বৃহস্পতিবার। সকালে বিতরণ করার অনিয়মে খবর পেয়ে ইউনিয়ন পরিষদে যান ইউএনও তানভীর আল নাসিফ। তখন তিনি ইউপি চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করেন।

দুপুরে আবার অভিযোগ পান প্রত্যেক জেলেকে ৬-৭ কেজি করে চাল কম দেয়া হচ্ছে। তখন তিনি সখিপুর থানার পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। ততক্ষণে ৩২৪ জেলের মধ্যে চাল বিতরণ করা হয়েছে। বাকি ২৬০ জেলের চাল আলাদা করে অন্য চাল পরিমাপ করা হয়। তখন ৩৫ বস্তা চাল অতিরিক্ত পাওয়া যায়। যা জেলেদেকে কম দিয়ে রেখে দেয়া হয়েছিল। আর উপস্থিত জেলেরা ৬-৭ কেজি করে চাল কম দেয়ার অভিযোগ করেন। তখন পুলিশ ইউপি চেয়ারম্যান শামসুদ্দোহা রতন ও সচিব জাহাঙ্গীর আলমকে আটক করে। আর ৩৫ বস্তা চাল জব্দ করে থানায় নিয়ে যায়।

কিন্তু আরশিনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুদ্দোহা রতন বলেন, গোডাউন থেকে ৪০ কেজি করে চাল দেয়া হয় ঠিকই, তবে সেখানে বস্তার ওজন ধরা হয় না। তাই আমরা প্রত্যেককে ৩৮ থেকে ৩৯ কেজি করে চাল দেই।

ভেদরগঞ্জ সার্কেলের এএসপি আমিনুর রহমান বলেন, চাল বিতরণে অনিয়ম হয়েছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে আমরা আরশিনগর ইউনিয়ন পরিষদে অভিযান চালাই। এ সময় পরিষদ থেকে ৩৫ বস্তা চাল জব্দ করা হয়।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব তানভীর আল নাসীফ বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে পরিষদে এসে আমরা বিতরণকৃত চাল ও অবশিষ্ট চাল গুলো হিসাব করে দেখলাম অনিয়ম করে এখানে ৩৫ বস্তা চাল অবশিষ্ট রেখে দেয়া হয়েছে। চাল গুলো জব্দ করা হয়েছে। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব এনামুল হক বলেন, ৩৫ বস্তা চাল সহ চেয়ারম্যান ও সচিবকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। যেহেতু বিষয়টি দুদকের সাথে সংশ্লিষ্ট। আমাদের কার্যক্রম শেষে তাদেরকে পাঠিয়ে দেয়া হবে। দুদক পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহন করবে।


সর্বশেষ  
জনপ্রিয়  
ফেইসবুক পাতা
error: কপি করা নিষেধ !!